দলবেঁধে ধর্ষণের পর ভিডিও ধারণ, ভয়ে স্কুলছাত্রীর আত্মহত্যা

প্রতীকী ছবি

পিরোজপুরের কাউখালীতে দলবেঁধে ধর্ষণের ভিডিও মুঠোফোনে ধারণের পর ফেসবুকে ছড়িয়ে দেওয়ার হুমকিতে এক স্কুলছাত্রী আত্মহত্যা করেছে।

এ ঘটনায় পাঁচজনের বিরুদ্ধে আত্মহত্যার প্ররোচনার অভিযোগ এনে কাউখালী থানায় মামলা করেন কিশোরীর বাবা। মামলার পর শুক্রবার বিকেলে শাকিল হোসেন নামে একজনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ।

- Advertisement -

মামলায় উল্লেখ করা হয়, দীর্ঘদিন ধরে উপজেলার ছোট বিড়ালজুড়ির স্কুলছাত্রীকে উত্ত্যক্ত করতেন কাঁঠালিয়া গ্রামের সজিব খান, মো. সাকিল, আকাশ মীর, ফয়সাল, আরাফাতসহ কয়েকজন। ১৬ জুলাই মুঠোফোনে স্কুলছাত্রীকে ডেকে স্থানীয় হাবিব মীরের একটি পরিত্যক্ত বাড়িতে নিয়ে যান তারা। সেখানে তাকে পালাক্রমে ধর্ষণ করেন। এছাড়া ধর্ষণের দৃশ্য মুঠোফোনে ধারণ করা হয়। পরে তাকে মুঠোফোনে নানা কুপ্রস্তাব দেন তারা। এতে রাজি না হওয়ায় ধর্ষণের ভিডিওটি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে দেওয়া হবে বলেও হুমকি দেন।

বখাটেদের হুমকিতে ভয়ে ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যার চেষ্টা করেন ভুক্তভোগী স্কুলছাত্রী। প্রতিবেশীরা টের পেয়ে তাকে উদ্ধার করে রাজাপুর স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করেন। সেখান থেকে ভুক্তভোগী কিশোরীকে বরিশাল শের-ই-বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেয়া হয়। সেখানেই ১৭ জুলাই মেয়েটি মারা যান।

কাউখালী থানার ওসি বনী আমিন জানান, কিশোরীকে আত্মহত্যার প্ররোচনায় মামলা করেন ভুক্তভোগীর বাবা। এ ঘটনায় একজনকে গ্রেফতার করা হয়েছে। বাকিদেরও গ্রেফতারে অভিযান অব্যাহত রয়েছে।

আপনার মতামত দিন
- Advertisement -