দেওয়ানগঞ্জে বিষ খাইয়ে জামাইকে হত্যার অভিযোগ

dewangonj

জামালপুরের দেওয়ানগঞ্জে বিষ দিয়ে জামাই শাহা আলম (৩৫) নামে জামাইকে হত্যার অভিযোগ করেছে স্বজনরা। বৃহস্পতিবার (১০ জুন) দুপুর ১টার দিকে বকশীগঞ্জ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তিনি মারা যান। শাহ আলম দেওয়ানগঞ্জ উপজেলার পাররামরামপুর ইউনিয়নের মধ্যেরচর গ্রামের হেকমত আলীর ছেলে।

এর আগে, বুধবার (০৯ জুন) রাতে বউকে বাড়ি নিতে শ্বশুরবাড়ি ডিগ্রিচর এলাকার পূর্বপাড়া গ্রামে আসেন শাহা আলম। রাতে খাবারের সঙ্গে বিষ মিশিয়ে সেই খাবার দেওয়া হয় বলে অভিযোগ করেন শাহা আলমের বড় ভাই সাইমদ্দিন।

- Advertisement -

স্থানীয় বাশিন্দা দেওয়ানগঞ্জ নিউজকে জানিয়েছেন, ‘গতকাল বুধবার দিবাগত রাতে বউকে ফিরিয়ে নিতে শ্বশুরবাড়ী ডিগ্রীরচর এলাকার পুর্বপাড়া গ্রামে যায় শাহা আলম। রাতে খাবার খেয়ে ঘুমিয়ে পরলে সকাল বেলা  শারীরিক অবস্থা খারাপ হয় তার। পরে বমি করতে থাকে সে। আমারা গিয়ে দেখি আলমের অবস্থা খারাপ গা থেকে বিষের গন্ধ বের হচ্ছে। পরে তাকে হাসপাতালে পাঠিয়ে দেওয়া হয়।  নিহত আলমের সঙ্গে তার স্ত্রীর প্রায় ঝগড়া লেগেই থাকত ঝগড়া করে সে বাবার বাড়ী চলে আসে। নিজ স্ত্রীকে আনতেই সে শ্বশুর বাড়ি গিয়েছিল।’ তবে খাবারে বিষ মিশিয়ে মারা হয়েছে কিনা এই বিষয়ে সত্যতা নিশ্চিত করে কিছু বলতে পারেননি তিনি।

সাইমদ্দিন জানান, ১২ বছর আগে ডিগ্রিরচর পূর্বপাড়া গ্রামের মৃত রাজ্জাকে মেয়ের সঙ্গে ভাই শাহা আলমের বিয়ে হয়। এর মধ্যেই তিনটি সন্তানও হয়। কয়েকদিন আগে বেড়াতে যাওয়ার কথা বলে বাবার বাড়ি যায় রোকসানা। বুধবার সন্ধ্যায় স্ত্রীকে ফেরত আনতে শ্বশুরবাড়ি গেলে রাতে খাবারের সঙ্গে বিষ মেশানো হয়। সকালে খবর পেয়ে শ্বশুরবাড়ি থেকে বকশীগঞ্জ হাসপাতালে এনে চিকিৎসা করানো অবস্থায় বেলা ১টার দিকে মারা যায়।

বকশীগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) শফিকুল ইসলাম জানান, মরদেহটি হাসপাতাল থেকে থানায় নেওয়া হয়েছে। ময়নাতদন্তের প্রতিবেদনের ফলাফলের ভিত্তিতে পরবর্তী পদক্ষেপ নেওয়া হবে।

স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে জানান, আমি মেম্বারকে সেখানে পাঠিয়ে দিয়েছি ।

দেওয়ানগঞ্জ মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা ওসি মুহাব্বত কবির জানান, লাশ ময়নাতদন্তের জন্য মর্গে পাঠানো হবে। নিহতের পরিবার থেকে কোন অভিযোগ পাওয়া যায়নি অভিযোগ পেলে আইনগত ব্যাবস্থা গ্রহণ করা হবে।

আপনার মতামত দিন
- Advertisement -